জিপিএ ও নতুন শিক্ষাক্রমে ইংরেজি

প্রথম আলোতে প্রকাশিত সংবাদটির Headline "উঠে যাচ্ছে জিপিএভিত্তিক ফল, থাকছে না কাঠামোবদ্ধ প্রশ্ন"- দেখে কিছু তবদা খেয়ে গেলাম। আমার জানা মতে, জিপিএ বাদ দেয়ার কোন পলিসি কর্তৃপক্ষের ছিল না। সংবাদটি পড়ে  বুঝলাম যে, এটা একটি Cickbait টাইপের Headline। পত্রিকাগুলো যদি জানত, এই পৃথিবীতে কতশত লোক শুধু Headline পড়েই খবর সম্পর্কে ধারনা নেয়, তাহলে তাদের কিছুটা হলেও বোধদয় হওয়ার সম্ভাবনা থাকত। কিন্তু প্রথম আলো বলে কথা, জানেও হয়ত। কিন্তু অর্থ আয়ই যখন মূল বিবেচ্য হয় জানলে কি বা না জানলেই কি।

সাংবাদিক সংবাদের বিশ্লেষন করতে গিয়ে উদাহরন হিসেবে গাড়ির বানানো ও চালানোর ব্যাপারটিকে আমার মন খারাপের দিনে একটি হাসির খোরাক হয়েছে, বলা চলে। ১,৪৭,৫৭০ বর্গকিলোমিটারে বসবাসকারি ১৬ কোটি জনসংখ্যার এই বাংলাদেশে গাড়ি বানানোটাকেই সাধারন জনগণ এখনও স্বপ্ন হিসেবেই দেখে আর গাড়ি চালানোকে তারা একটি সাধারন দক্ষতার কাতারেই ফেলে।

যাই হউক, আমি ইংরেজির বিষয়ের শিক্ষক হিসেবে এই বিষয়ে কিছু বলার অধিকার রাখি। আমি Communicative Language Teaching (CLT) Method এর কিছুটা বুঝেছি, জগন্নাথে পড়ার সময়। কিন্তু ১৯৯৬ সালে ষষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্র হিসেবে এই Method এর প্রথম বাচ্চাগুলো আমরাই। ২০০৩ সালে যখন HSC পরীক্ষা দিচ্ছিলাম আমাদের শিক্ষকরা তখনও পর্যন্ত ঐ Method এর উপর পূর্ণদক্ষতা অর্জন বা তা প্রয়োগের পরিবেশ পেয়েছিলেন কিনা এখনও সন্দেহ হয়। মাঝে মাঝে মনে হত, তাদের এই দৌড়ে গিনিপিগ বানিয়েছিলেন নীতিনির্ধারকরা। আমিও এ দৌড়ে আছি অনেকদিন। এখন এটা ২০২২ সাল। দূর্ভাগ্যক্রমে, নীতিনির্ধারকরা এখন Listening এবং Speaking এর ব্যাপারটা নিয়ে নিচু স্বরে কথা বলছেন। ৬০ঃ৪০ এর রাসায়নিক বিক্রিয়া বড়ই জটিল মনে হচ্ছে, যা প্রথম আলোর সংবাদটিতে রিপোর্টার অজ্ঞাতকারনে এই বিষয়টিকে অনেকটা আলুর চপের মত চেপে প্রকাশ করেছেন।

ছোটবেলায় BTV এর কল্যানে দেখা একটি সিনেমার প্লট এরকম ছিল। বাচ্চা হচ্ছে না বলে, রাজা দ্বিতীয় বিয়ে করেন। তাও বাচ্চা হয় না। অবশেষে, পীরবাবা বলে দেন যে, রাজাকে পাশের রাজ্যে আক্রমন করে শান্তিচুক্তিতে শর্ত হিসেবে ঐ রাজ্যের রাজকন্যাকে বিয়ে করলেই জন্ম নিবে রাজকুমার। রাজা আক্রমন করলেন, যুদ্ধ জয়ও করলেন এবং বিয়েও করলেন। অবশেষে, বাচ্চাও হল। রাজকুমার সুন্দরবনে তীর ছুড়ে হরিণও শিকার করলেন। সিনেমাও শেষ হল।

এটা ২০২২ সাল। এখনকার সিনেমা হলে গল্পে অন্যরকম টুইস্ট থাকত। 

যেমন, রাজা আসলে জন্ম থেকেই বন্ধ্যা যার জন্য তার আসলে বাচ্চা জন্ম দেয়ার কোন ক্ষমতাই নেই। কিন্তু পাশের রাজ্যের রাজকন্যা বিয়ে করার পর বাচ্চা আসল কোথা থেকে? এদিকে আবার পীরবাবাকেও কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না! কি একটা অবস্থা!

মূল সংবাদ লিংকঃ https://www.prothomalo.com/education/examination/5rkbblz90q

Post a Comment

0 Comments